অর্থনীতি

কলমাকান্দা একটি তক্ষকসহ ৬ জনকে আটক করেছে বিজিবি

  MD KAYEAS AHMED ২৩ অক্টোবর ২০২১ , সময় : ৭:২৯ মিনিট অনলাইন সংস্করণ

কলমাকান্দা
কলমাকান্দায় ১ টি তক্ষক সহ ৬ জন আটক

নেত্রকোণা লাইভ – কলমাকান্দা প্রতিনিধি

কলমাকান্দায় একটি তক্ষকসহ ৬ জনকে আটক করেছে বিজিবি

নেত্রকোণা’র কলমাকান্দায় একটি তক্ষকসহ ৬ জনকে আটক করেছে নেত্রকোণা ব্যাটালিয়ন (৩১-বিজিবি)। গত শুক্রবার (২২ অক্টোবর) রাত সোয়া ১১টার দিকে উপজেলার লেঙ্গুরা ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী নয়নকান্দি নামক এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।



আটককৃত তক্ষকটি ১৬ ইঞ্চি লম্বা ও ওজন ২৬০ গ্রাম। এর মূল্য আনুমানিক ১৯ লক্ষ টাকা। এসময় দুইটি মোটর সাইকেল জব্দ করা হয়।

আটককৃতরা হচ্ছে, নেত্রকোণা’র কলমাকান্দার উড়াখাল গ্রামের শাহজাহান আলীর ছেলে মো: ইমরান (২১), একই এলাকার আবুল কাশেমের ছেলে মোঃ দেলোয়ার হোসেন (২৫), ময়মনসিংহের ভালুকার মোরাডোবা গ্রামের মাহাবুব আলমের ছেলে দেলোয়ার হোসেন (৩২), ত্রিশালের কাঁঠাল রাজবাড়ী গ্রামের মো: আব্দুল জলিলের ছেলে মো: সোহেল (৩৫), নরসিংদীর পলাশ থানার হাসনহাটা গ্রামের আকবর হোসেনের ছেলে মো: সুমন (৩৩) এবং একই এলাকার শিলমান্দি গ্রামের রিপন মিয়ার ছেলে মো: হৃদয় (২১)।



নেত্রকোণা’য় ব্যাটালিয়নের (৩১-বিজিবি) অধিনায়ক এ এস এম জাকারিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, শুক্রবার রাতে সীমান্তবর্তী কলমাকান্দা উপজেলার লেঙ্গুরা বিওপির নায়েব সুবেদার মো: মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে ৮ সদস্যের একটি টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সীমান্তে টহল দিচ্ছিল।



এসময় সীমান্ত পিলার ১১৭০ হতে আনুমানিক ৪০০ গজ বাংলাদেশের অভ্যন্তরে নয়নকান্দি এলাকায় দুইটি মোটর সাইকেলযোগে গারো পাহাড়ের দিকে যাচ্ছিল আসামীরা। সন্দেহ হলে তাদের চ্যালেঞ্জ করে বিজিবির টহল দল। তখন মোটর সাইকেল রেখে পালানোর চেষ্টা করলে তাদের আটক করে বিজিবি। পরে তাদের তল্লাশী করে একটি তক্ষক জব্দ করে। পরে তাদের কলমাকান্দা থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।



ইউপি নির্বাচনকে সামনে রেখে ব্যাপক প্রচারণা চালাচ্ছেন রুবেল ভূইয়া- কৈলাটি ইউনিয়ন

তক্ষক নিয়ে বিস্তারিত:



তক্ষক (ইংরেজি -Gecko, বৈজ্ঞানিক নাম:Gekko gecko গোকোনিডি গোত্রের একটি গিরগিটি প্রজাতি।

পিঠের দিক ধূসর, নীলচে-ধূসর বা নীলচে বেগুনি-ধূসর।

সারা শরীরে থাকে লাল ও সাদাটে ধূসর ফোঁটা। পিঠের সাদাটে ফোঁটাগুলি পাশাপাশি ৭-৮টি সরু সারিতে বিন্যস্ত।

কমবয়সীতক্ষকের লেজে পরপর গাঢ-নীল ও প্রায় সাদা রঙের বলয় রয়েছে। মাথা অপেক্ষাকৃত বড়, নাকের ডগা চোখা ও ভোঁতা। চোখ বড় বড়, মণি ফালি গড়নের।



লেজ সামান্য নোয়ানো। দৈর্ঘ্য নাকের ডগা থেকে পা পর্যন্ত ১৭ সেমি এবং লেজও প্রায় ততটা। তক্ষকের ডাক চড়া, স্পষ্ট ও অনেক দূর থেকে শোনা যায়।

ডাকের জন্যই এই নাম। কক্‌কক্‌ আওয়াজ দিয়ে ডাক শুরু হয়, অতঃপর ‘তক্‌-ক্কা’ ডাকে কয়েক বার ও স্পষ্টস্বরে। এরা কীটপতঙ্গ, ঘরের টিকটিকি ছোট পাখি ও ছোট সাপ খেয়ে থাকে। ছাদের পাশের ভাঙা ফাঁক-ফোঁকড় বা গর্তে অথবা গাছে বাস করে।



ব্যাপক নিধনই বিপন্ন হওয়ার কারণ। অনেকে ভুলক্রমে তক্ষককে বিষাক্ত সরীসৃপ হিসেবে চিহ্নিত করে। তক্ষক দক্ষিণ এশিয়ায় বিপর্যস্ত একটি প্রাণী ।

Facebook Comments Box

আরও খবর:

Sponsered content

AllEscort